অপদার্থ

opodartho, firoj srabon, roktobij

তৃতীয় শ্রেণীর বিজ্ঞান বইয়ে পড়েছি, যে বস্তুর ওজন, আয়তন, অবস্থান আছে তাকে পদার্থ বলে । তাহলে যার ওজন, আয়তন, অবস্থান কিছুই নাই তাকে হয়ত অপদার্থ বলে এটা আমার ধারণা । কিন্তু আমার তো ওজন আয়তন অবস্থান সবই আছে তবুও আমাকে অপদার্থ বলা হয় কেন? আমার অপরাধ আমি অন্যায়ের প্রতিবাদ করি না তাই। আমি অন্যায় করেও নিজেকে দোষি ভাবতে চাই না তাই । তাহলে অপদাথের্র সঠিক সংজ্ঞাটা কি হবে? এমন হতে পারে, যে পড়াশোনা করেও জিপিএ ৫ পায় না সে অপদার্থ। পড়াশোনায় যে ভাল করতে পারে না, বাবা-মার কাছে সে অপদার্থ।  যদি না হয় তাহলে যারা জিপিএ ৫ পায় তবে কি তারা অপদার্থ? গল্পটা এমন যে, ছেলেটি পড়াশুনায় ভীষণ খারাপ মানে, পাশ মার্ক ও সে পায় না আর সারাক্ষণ খেলাধুলা নিয়ে থাকে।  আর মানুষের ব্যাগার খাটে (ব্যাগার মানে বিনা পরিশ্রমে অন্যের কাজ করে দেয়া)। যেমন যে স্বেচ্ছায় অন্যের উপকার করে। তো ছেলেটাকে নিয়ে বাবা-মা ভীষণ উদ্বিগ্ন। অন্য ছেলে মেয়েরা সবাই পড়াশোনা করে চাকুরি করছে আর ব্যাগার খাটা ছেলেটা অপদার্থই রয়ে যাচ্ছে। দিন যায় মাস যায়, বাবা-মা বৃদ্ধ হয়ে পড়লো এবং গৃহকর্তা খুবই অসুস্থ হয়ে পড়লো।  চিকিৎসা করতে অনেক টাকা লাগবে। সব চাকুরীজীবি ছেলে মেয়ে বাবার চিকিৎসা তো দূরের কথা, তারা খোঁজখবরও নেয়া বন্ধ করে দিলো। কিন্তু অপদার্থ কাউকে না জানিয়ে নিজের কিডনি বিক্রি করে বাবার চিকিৎসার করারো । তো বাবা মোটামুটি সুস্থ। সে অপদার্থকে এখন আর বকে না, ভাবে আমি যাদেরকে নিয়ে গর্ব করতাম তারা তো আমার বিপদে এগিয়ে আসলো না কিন্তু আমার অপদার্থই তো বিপদে আমাকে ছেড়ে যায় নি। এদিকে অপদার্থ লুকিয়ে লুকিয়ে ঔষধ খায়। তো শেষে সে বাবার হাতে ধরা পড়লো । যে সে নিজের কিডনি বিক্রি করে দিয়েছে আর সেই ক্ষত শুকানোর জন্য সে ঔষধ খায়। বাবা তাকে ডেকে আবারও গালমন্দ করলো এবং বলল, তুই আসলেই একটা অপদার্থ।

বাংলাদেশের আনাচে কানাচে এমন অনেক অপদার্থ এখন ও রয়ে গেছে, যারা হয়ত কোনদিনই পদার্থ হতে পারবে না । কিন্তু পদার্থ হয়ে যদি বাংলা মাকেই আমরা  অস্বীকার করি তো এমন পদার্থ আমাদের দরকার আছে কি? আমার তো মনে হয় না।

ফিরোজ শ্রাবন​
ফিরোজ শ্রাবন​

 

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts

মতামত দিন Leave a comment