একটি কবিতা ও রক্তগোলাপ

একটি কবিতা ও রক্তগোলাপ

ছেলেটা ছিল পাগলাটে, বাউন্ডুলে। আর মেয়েটা লেখাপড়া নিয়ে প্রচন্ড সিরিয়াস।ছেলেট মাঝে মাঝে বেহালা হাতে কোন গাছের নিচে বসে পড়ত। আর মেয়েটা সবসময় বই হাতে ঘুরত।ছেলেটার সাথে মেয়েটার প্রথম দেখা একটা ঝামেলায়। কোন কারণে ভার্সিটিতে একটা কোন্দল লেগেছিল। মেয়েটা আনমনে পড়তে থাকায় তা খেয়াল করেনি। চেঁচামেচি শুনে মাথা তুলে তাকিয়ে দেখে সবাই ছুটছে। সে কি করবে, কোনদিকে যাবে এসব ভাবতে ভাবতেই কেউ একজন তাকে জাপটে ধরে মাটিতে পড়ে গেল। কি হল ব্যাপারটা বুঝার আগেই সেই একজন তাকে টেনে তুলে বলল-আরে চলুন। এখানে থাকলে নির্ঘাৎ মারা পড়বেন। দেখছেন না মারামারি লেগেছে।মেয়েটার সমস্ত শরীর যেন অবশ হয়ে গেছে। ছেলেটি মেয়েটিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। মেয়েটার কেমন যেন ঘোর লাগছে। নিরাপদ জায়গায় গিয়ে ছেলেটি মেয়েটির হাত ছেড়ে দিয়ে অনেক বকা দিল।মেয়েটি শুধু ছেলেটার দিকে তাকিয়েই থাকল। ছেলেটার স্পর্শে কি যেন আছে যা মেয়েটার শরীর থেকে হৃদয় স্পর্শ্ করে গেল? ছেলেটি চলে গেল। মেয়েটা কিছুই বলতে পারল না।এরপর মেয়েটা অনেক খুঁজল ছেলেটাকে।মাঝেমাঝে দেখতে পেলেও কাছে যাওয়ার আগেই যেন হাওয়া হয়ে যেত।সামনাসামনি কথা বলার সুযোগ হয়নি কখনো। এতদিনে মেয়েটি বুঝে গেল ছেলেটা চরম বাউন্ডুলে।কিন্তু তাতে কি তাকে তার চাই-ই চাই।      

মেয়েটি ক্যাম্পাসে বান্ধবীদের সাথে বসে গল্প করছিল।অদুরে কেউ একজন বেহালা বাজাচ্ছে।সুরের উৎসের দিকে তাকিয়ে মেয়েটি অবাক হয়ে গেল। এতো সেই বাউন্ডুলে যার জন্য তার জীবনের সব সুখ হারাম হয়ে গিয়েছে। মেয়েটি ছেলেটির কাছে গিয়ে বলে-আপনি কি মানুষ, জ্বীন না?

ছেলেটি বেহালা বাজানো থামিয়ে মেয়েটির দিকে তাকায়। মেয়েটি আবার বলে-হয়তো আমার কথা আপনার মনে নেই, কিন্তু আমি আপনাকে অনেক খুঁজেছি।

-কেন?

-জানিনা, তবে অনেক খুঁজেছি।আমার শুধু মনে হয়েছে আপনাকে খুঁজে পেতেই হবে, আপনাকে খুঁজে না পেলে আমার চলবেই না।আমি আপনাকে চিনিনা, জানিনা।এমনকি আপনার নামটাও জানিনা কিন্তু এটা ঠিক বুঝতে পেরেছি আপনাকে ছাড়া আমার চলবে না।

মেয়েটির গলা ধরে আসে কান্নায়। ছেলেটাও কোন কথা বলছে না দেখে মেয়েটি চলেই যাচ্ছিল। ছেলেটি তখন বলে

-স্বপ্নচারিনী

আামার স্বপ্নে চলার সঙ্গি হবে?

আকাশে সুখ পাঠাব, পাহাড়ে ঘর বানাব,

আর ঘাসফুলের বিছানায় শুয়ে করব জ্যোৎস্না বিলাস।

অস্ফুটে মেয়েটি বলে-স্বপ্নীল!

-হ্যা মীরা আমি স্বপ্নীল যে তোমাকে প্রতিদিন একটি কবিতা আর একটি রক্তগোলাপ পাঠায়।যার সাথে তোমার ধাক্কা লেগেছিল চারুকলার সামনে।রঙে ঢেকে গিয়েছিল আমার মুখ তোমার ধাক্বায়।তুমি সেদিন কি সব বলে চলে গিয়েছিলে।কিন্তু আমার মনে জায়গা করে নিলে আজীবনের তরে।প্রেম-ভালোবাসার প্রতি আস্থাহীন ছেলেটা প্রথম দেখায় তোমার প্রেমে পড়ে গেল।জানো মীরা, তুমি আমাকে এতোদিন খুঁজেছো আর আমি তোমাকে চোখের আড়াল হতেই দিইনি।

অঙ্কনা জাহান
অঙ্কনা জাহান

 

Author: অঙ্কনা জাহান

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts

মতামত দিন Leave a comment