মন তোকে দিলাম

মন তোকে দিলাম

আমি সবকিছু ছাড়তে পারি তোমাকে ছাড়তে পারবোনা। তপন চৌধূরীর এই গান যতবার শুনি ততবারই ভাবি আসলে ভালবাসা কত অন্ধ। সালমান শাবনূরের ছবি ”তোমাকে চাই” বাংলাদেশের ব্যবসা সফল একটি ছবি। এই ছবিতে সালমান শাবনূর বাড়ি গাড়ি, টাকা পয়সা কিছুই চায়না শুধু একজন অন্যজনকে চায়। তোমাকে চাই এই কথাটা হয়ত অনেক অর্থ বহন করে না কিন্তু কিসের বিনিময়ে তোমাকে চাই তা আসলে রহস্যই থেকে যায় কারণ যখন শুনি প্রেমের টানে যুবকের সাথে পালিয়ে গেল তিন সন্তানের মা তখন তোমাকে চাই শুনতে আসলেই খুব খারাপ লাগে। আমরা যারা ‘তোমাকে চাই’তে বিশ্বাসী তাদেরকে বলি, আমরা শুধু তোমাকে না চেয়ে যদি সবাই আমাকে চায় এমনভাবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারি তাহলে কিন্তু মন্দ হয়না। আমরা যখন কাউকে প্রেম নিবেদন করি তখন সেই প্রেক্ষাপটটা আসলে কতটুকু যুক্তি বহন করে ।তা কিন্তু ভেবে দেখতে হবে। সহপাঠি হলেই কি প্রেম বা ছাত্রী- শিক্ষক হলে প্রেম বা বেকার আছি তাই কোন কাজ খুঁজে পাচ্ছিনা তাই প্রেম করতে হবে এমন। আমি আমার মত করে  বলি, আমি যাকে পছন্দ করি তাকে ভালবাসতে দোষ নেই কিন্তু তাকে আপন করে পাবার যত রকম যোগ্যতা দরকার তা আদৌ আমার আছে কি না তা কিন্তু আমার চিন্তা করা দরকার। রিক্সাচালক এর সাথে ধনীর দুলালীর প্রেম এটা সিনেমাতেই সম্ভব, বাস্তবে নয়। আপনি বলতেই  পারেন প্রেম অন্ধ কিন্তু আপনি তো প্রেমের ক্ষেত্রে একজন বড়লোকের মেয়েকেই টার্গেট করলেন তাহলে প্রেম অন্ধ হল কি ভাবে? এখানে তো আমি পুরোপুরি ব্যবসায়িক গন্ধ পাচ্ছি। আবার গরিবের মেয়ে প্রেমে পড়ল এক ধনীর দুলালের এবং প্রেমে ব্যর্থ হয়ে তার বিরুদ্ধে নিয়ে আসা হল ধর্ষণের অভিযোগ। তাহলে প্রেম অন্ধ হল কি ভাবে ? এ ক্ষেত্রে প্রেম আসলে অন্ধ না, প্রেম স্বার্থপর। রমজানে যেমন কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর হাতে আমরা জিন্মি হয়ে পড়ি । প্রেমের ক্ষেত্রে এখন এমন কিছু দুষ্টু লোকের কারণে প্রেম এখন সম্পূর্নভাবে কলুষিত। প্রবাদ আছে, সরকারী চাকুরী আর সত্যিকারের প্রেম যোগ্য লোক পায়না। কারণ যোগ্য লোক কোন মেয়ের পেছনে বা চাকুরিদাতাদের তেল মারতে যায়না। আপনারা  যারা প্রেমকে কলুষিত করছেন তারা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এর কথা ভেবে দেখতে পারেন ”বড় প্রেম শুধু কাছেই টানেনা দুরেও ঠেলে দেয়।” অথবা ”ভোগে নয়, ত্যাগেই সুখ”। তিনি হয়ত অনুমান করতে পেরেছিলেন প্রেমের বাজার খারাপ হবে। আর এতটা খারাপ হবে জানলে হয়ত আরো কিছু বলে যেতেন।

এবার তাহসান এর কথা বলি । তাহসান মিথিলা গানের মাধ্যমে একে অন্যের প্রেমে পড়ে এবং দীর্ঘদিন প্রেম করে অবশেষে ঘর বাঁধে। তারা যখন নাটকে অভিনয় শুরু করল হয়ত তখনই একজন আর একজনের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলল। এখন একজন আর একজনকে  ছাড়তে বসেছে। আমার এটা ব্যক্তিগত মতামত যে হয়ত তারা এখন কেউ কারো প্রতি সেই সন্মানটা আর ধরে রাখতে পারছে না। যে তাহসান মিথিলার বাসার সামনে প্রতি জন্মদিনে ফুল রেখে আসতো আর বলতো, তোমাকে চাই। সেই তাহসান এখন আর তোমাকে চায় না কারণ হয়ত সে এখন অন্য কাউকে চায়। আমরা বন্ধুরা দুষ্টুমি করে একে অন্যকে  মাঝে মাঝে বলি, ‘পোলাডা বিয়া কইরা নষ্ট হইয়া গেছে।’ সেই পোলা কি তাহলে তাহসান? আবার এমনও হতে পারে  কি, তাহসান এর জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাল চরমভাবে । কারণ  তাহসান এর ফ্যান কিন্তু আনেক আগে থেকেই তখন তো সে ব্যাচেলর আর এখন এক কন্যার পিতা। তখনই সে কোন সাদাকাগজ হতে পারলে এখন কেন এই কালিমা। মিথিলাকে এক সাক্ষাৎকারে বারবার বলতে শুনেছি, তাহসান এবং আমার ক্যারিয়ার একসাথেই হয়েছে। এ কথা দিয়ে সে কি বোঝাতে চায়। স্বাধীনতা মানে কিন্তু নিজের মন মতো কাজ করা নয়। একটা গল্প বলি, এক মহিলা স্বামীর অবাধ্য হয়ে সৌদি পাড়ি জমায় ভাগ্য উন্নয়নের জন্য। কিন্তু ভাগ্য তো দুরের কথা, উল্টো সে নিজেকে নিঃশেষ করে বাংলাদেশে ফিরে আসে। এবং দেশে ফিরে এসে সে স্বামীকেই দোষারোপ করে যে, তুমি আমাকে কেন বাঁধা দিলে না, কেনো আমাকে শাষণ করলে না, কেন কেন কেন? স্বামী কি উত্তর দিবে ? সে তো এখন জমিহীন এক বর্গাদার।

ফিরোজ শ্রাবন​
ফিরোজ শ্রাবন​

Author: ফিরোজ শ্রাবন

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts

মতামত দিন Leave a comment