মিতুদির কুকুর কাহিনি

মিতুদির কুকুর কাহিনি

মিতুদি আমার ঘরে কুকুরের বাচ্চা দেখে বললেন,  এটা আবার কখন আনলে? আমি বললাম আর বলবেন না ছেলে তার বন্ধুর বাড়ি থেকে এনেছে। এখন ওটাই তার খেলার সাথী।

এ কথায় মিতুদি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন,  তুমি ছেলের আবদার মেনে নিলে?আমি আবার কুকুর টুকুর পোষা একেবারেই পছন্দ করি না।

আমি বললাম আমার ছেলের এই বয়েস তো আর চিরদিন থাকবে না।  ওর শখ হয়েছে একটা কুকুর পুষবে। আমি বাধা দিলে সে হয়তো ভয়ে তা মেনে নেবে কিন্তু তার ছোট্টবেলার এই শখটা হয়তো অপূর্ণ থেকে যাবে।

মিতুদি বললেন, আমার  ছেলেটার ও কুকুর পোষার খুব শখ  ছিলো। একবার বন্ধুর বাসায় খেলতে গিয়ে তাদের বাড়ির কুকুরের বাচ্চাগুলিকে  দেখে তারও খুব শখ হোলো একটা বাচ্চাকে সে নিয়ে যাবে।

বন্ধুটিও খুশি হয়ে তাকে একটা কুকুরের বাচ্চা দিয়ে দিলো  

এক হাতে ব্যাট আর আরেক হাতে কুকুরের বাচ্চাটাকে নিয়ে আদর করতে করতে খুব খুশি হয়ে সে যেই ঘরে ঢুকলো আমি তার হাতে কুকুরের বাচ্চা দেখে জিজ্ঞেস  করলাম, তোর হাতে ওটা কি?

ছেলে তো খুব খুশি হয়ে বলে উঠলো,  কুকুরের বাচ্চা মা। আমি এটাকে পুষবো।

সাথে সাথে আমি  তার হাত থেকে ব্যাটটা কেড়ে নিয়ে সেই ব্যাট নিয়েই তাকে তাড়া করে বলে উঠলাম,  এক ঘরে দুইটা কুকুরের বাচ্চা তো আমি থাকতে দেবো না। হয় তুই থাকবি নয় ওটা থাকবে। এখন তুই চিন্তা করে দেখ কে থাকবে?

আমি জিজ্ঞেস করলাম, তারপর?কুকুরটাকে সে কি করলো?

মিতুদি হাসতে হাসতে বললেন,  তারপর আর কি। কুকুরটাকে সাথে সাথে আবার বন্ধুর বাসায় ফেরত দিয়ে আসলো।

আমি জিজ্ঞেস করলাম, ছেলের মন খারাপ হয় নি?  

মিতুদি হাসতে হাসতে বললেন,  সে তো এখন হস্টেলে থাকেএকদিন  কুকুর প্রসঙ্গে ঘটনাটা বলতে গিয়ে সে তার এক বন্ধুর মাকে নাকি বলছিলো,  আন্টি আমি এখন চাইলেই একটা কুকুর পুষতে পারি। মাও হয়তো বকবেন না। কিন্তু কুকুরের বাচ্চা পুষতে চাইলেই ঘটনাটা আমার মনে পড়ে যায় আর আমি আমার মার বকাগুলিকে এতো মিস  করি তখন।

মিতুদির মুখে ঘটনাটি শুনে আমি মিতুদির দিকে তাকিয়ে ভাবতে লাগলাম,  ছেলে মাকে যতটা বুঝেছে মিতুদি কি মা হয়ে তাঁর ছেলেকে ততখানি বুঝেছেন?

Author: অনুপা দেওয়ানজী

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts