মিতুদির ফ্যান

মিতুদির ফ্যান

মিতুদির বাসায় সদ্য একটি কাজের মেয়ে রাখা হয়েছে। মেয়েটির বয়েস দশ কি বারো হবে। খুব হাসিখুশি স্বভাবের । মিতুদি নিজে তার সঙ্গে থেকে মোটমুটি সব ধরণের কাজই করিয়ে নেন।

একেবারে গণ্ডগ্রামের সহজ, সরল  আর সেই সাথে একটু বোকাই বলা চলে  মেয়েটিকে।একদিন তাকে দিয়ে ঘরের ঝুল পরিস্কার করার পরে মিতুদি বললেন,

– ফ্যানে খুব ময়লা জমেছে রে। বারান্দা থেকে মইটা নিয়ে আয় তো।

মেয়েটি যখন মই নিয়ে এলো মিতুদি তাকে বললেন,

– তুই মইয়ে চড়ে ভেজা কাপড়  দিয়ে ফ্যানগুলি মুছবি আমি নিচ থেকে তোকে কাপড়টা ময়লা হলে পরিষ্কার করে বার বার ভিজিয়ে দেবো বুঝলি?

মেয়েটি মাথা নেড়ে বললো,

-হ খালাম্মা বুজ্জি

বলেই তরতরিয়ে মইয়ের আগায় উঠে  গেলো।

মিতুদি বালতির জলে কাপড় ভিজিয়ে তার হাতে তুলে দিতেই হঠাৎ কলিং বেলের আওয়াজ শুনে কে এসেছে তা দেখার জন্যে দরজা খুলতে গেলেন।

মিতুদি দেখেন পেপারবিল নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে হকার।

মেয়েটা ততক্ষণে ফ্যানটাকে ভালো করে মোছার জন্যে মই থেকে নেমে এসে বালতির জলে ন্যাকড়াটাকে ভিজিয়ে আবার মইয়ে চড়ে ফ্যানের প্রতিটি ব্লেডকেনি নিচের দিকে টেনে এনে ভালো করে মুছতে লাগলো।

মিতুদি  যখন হকারের বিল মিটিয়ে  ফিরে আসলেন তখন দেখতে পেলেন তাঁর সাধের ফ্যানের তিনটা ব্লেডকেই মেয়েটা ততক্ষনে নিচের দিকে নামিয়ে এনে এক  গোলাকার এক বৃত্ত রচনা করে বসেছে।

 

অনুপা দেওয়ানজী

Author: অনুপা দেওয়ানজী

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts