লাভ হইছে।

‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি, এই গানটা অনেক সুন্দর একটা গান।’ এটা আমার কথা নয় । এটা ২১ শে ফেব্রুয়ারী উপলক্ষে চ্যানেল আইয়ে প্রচারিত একটি গানের অনুষ্ঠানের উপস্থাপক এভাবে উপস্থাপন  করছিলেন। আমি হতাশ, তিনি আমাদের জাতীয় সঙ্গীতকে গান বলে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন বলে । তিনি  কোন ভুল বলেননি।  কিন্তু তার জ্ঞান দেখে আমি হতাশ । এটা অবশ্যই গান, তবে দেশের গান নয়।  এটা আমাদের জাতীয় গান । আমরা যারা অগ্রজ তারা যদি এখনও ভুল কিছু উপস্থাপন করি তাহলে আমাদের পরবর্তী প্রজন্মকে দায়ী করে কি লাভ? আগে তো আমাদের সঠিক তথ্য তাদেরকে জানাতে হবে। আজকে অবস্থা এমন যে,  আর্ন্তজাতিক মার্তভাষা দিবসকে কেউ কেউ ভালবাসা দিবস  বললেও অবাক হবার কিছু থাকবে না। কারণ দিবস যাই হোক, বান্ধবীকে নিয়ে ঘুরতে বের হওয়াই যেন এখন মুখ্য উদ্দেশ্য। আমাদের উদ্দেশ্য যেমন আত্মকেন্দ্রিক, তেমনি আমাদের ভবিষ্যৎও যেন পথহারা পথিক।

আমরা কি করছি, কেন করছি, কি খাই না খাই তার দেখভাল করার জন্য বিএসটিআই যথেষ্ট নয়। বলা হয়, শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। কিন্তু সেই মেরুদন্ড যেন আজ আর সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারছে না। প্রতি বছর প্রশ্নপত্র ফাঁস আর শিক্ষার কারিকুলাম নির্ধারণ এবং পিএসসি থাকবে কি থাকবে না এটা নিয়ে আমরা পড়ে আছি । আর ওই দিকে কোচিং ব্যবসায়ীরা তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে । এবং জিপিএ ৫ বিক্রি করে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ধ্বংস করার শেষ পর্যায়ে। আমাদের লাভের মধ্যে এটাই যে, আমরা কেউ নিরক্ষর থাকবো না। সারা বিশ্বে যখন আইটি এক্সপার্ট তৈরি হচ্ছে তখন আমরা ফেসবুক নিয়ে পড়ে আছি । আর জোস একটা স্টাটাস দিচ্ছি এই বেশ ভাল আছি।

আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপদেস্টা সজিব ওয়াজেদ জয় এর সময় উপযোগী পদক্ষেপ আর মন্ত্রী মহোদয় জুনায়েদ আহমেদ পলক এর আইটি যখন সম্ভাবনার কথা বলে, তখন আমরা অবশ্যই স্বপ্ন দেখি ডিজিটাল বাংলাদেশের। এমন একটা বাংলাদেশ আমরা চাই যেখানে সবাই নিজের লাভের কথা চিন্তা না করে চিন্তা করবে দেশের জন্য। এবার দেশের কথা বলি, মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়ে যখন এক মুক্তিযোদ্ধ্া তার আঙিনায় ফিরলেন,  তখন সহযোদ্ধাদের কাঁধে তাঁর লাশ দেখে  স্ত্রী কেঁদে কেঁদে বলছে,  ‘কি হইছে?’ সহযোদ্ধাদের একজন বললেন, ‘ভাবী লাভ হইছে, ভাই শহীদ হইছে।’ কিন্তু স্ত্রী তো লাভ বুঝতে চায় না।  সে তার স্বামীকে ফেরত চায়।  

একবার শাহরুখ খান বাংলাদেশে আসলেন ।  অন্তর শো বিজ​ নামে এক ইভেন্ট ম্যাানেজমেন্ট ছিল এর আয়োজক। এই অন্তর শো বিচ সমস্ত ভারতীয় শিল্পীদের দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে তুলে নিয়েছেন। কিছুদিন পর পরই প্রচুর টাকা  খরচ করে বিভিন্ন ভারতীয় শিল্পী  বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয় আর বাংলাদেশের শিল্পীদের  সেই মঞ্চে  গান করারও সুযোগ থাকে না। শাহরুখ খান আসলেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন্ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও তার দর্শক ছিলেন । শাহরুখ খান নায়ক কিন্তু তিনি  অভিনয় করলেন না, করলেন নাচ। এটা কি নাচ নাকি ফ্যাশন শো বুঝলাম না, কি হইল। শুধু বুঝলাম, শাহরুখ খান এই নামটাই আমাদের কাছে বিরাট ব্যাপার। যাই হোক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকরা আগত মন্ত্রীকে প্রশ্ন করলে তিনি বললেন, এই ধরনের আয়োজন আমাদের দেশকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করবে। কারণ তিনি প্রায় ৩(তিন) লক্ষ টাকা আয়কর দিয়ে গেছেন।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts