সর্বকনিষ্ঠ শহীদ বুদ্ধিজীবী শেখ আব্দুস সালাম

সর্বকনিষ্ঠ শহীদ বুদ্ধিজীবী শেখ আব্দুস সালাম

স্বাধীনতার আগে কালিয়া মহাবিদ্যালয় ( পরে শহীদ শেখ আব্দুস সালাম ডিগ্রী কলেজ) এর অধ্যক্ষ শেখ আব্দুস সালাম ১৯৪০ সালে যশোর জেলার কালিয়া থানার (বর্তমান নড়াইল জেলার অধীন) বিলব্যাওচ গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। অতুলনীয় মানবদরদী শহীদ শেখ আব্দুস সালাম স্কুল জীবন থেকেই রাজনীতি তে জড়িয়ে পড়েন। সে সময় স্কুলের টেবিলের উপর তাঁকে উঠিয়ে দেওয়া হত বক্তৃতা দেবার জন্য। অসাধারণ বক্তৃতা দিতে পারতেন তিনি। প্রতিবাদী ছিলেন এই বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ; অন্যায়ের প্রতিবাদ করতেন বলে কয়েকবার জেলও খাটতে হয়েছে তাঁকে। ১৯৬০ সালে বি. এ. পাশ করার পর তাঁকে কিছু দিন পড়াশোনা স্থগিত রাখতে হয়। তবে এ সময় তিনি কয়েকটি স্কুলে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করে স্কুলগুলিকে প্রতিষ্ঠা করে গিয়েছিলেন। ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি সাহিত্যে মাষ্টর্স-এ ভর্তি হন। এর আগে ঢাকা টিচার্স ট্রেনিং ইনসটিটিউট প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে বি. এড. পাশ করেন।

১৯৭০ সালে তিনি এম. এ. প্রথম পর্ব পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অধিকার করেন। ১৯৭১ সালে এম. এ. শেষ পর্ব পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন, কিন্তু দেশের তীব্র গণ আন্দোলনের কারণে পরীক্ষা স্থগিত হয়ে যায়।

অসহযোগ আন্দোলন শুরু হলে, তাঁর এলাকায় প্রকাশ্যে পাকিস্তানী পতাকা পুড়িয়ে ফেলেছিলেন। ৭ মার্চ ১৯৭১পতাকা পোড়ানোর অনুষ্ঠানে তিনি যে বক্তৃতা করেন, তা পরবর্তী সময়ে এলাকার মানুষদের মুক্তিযুদ্ধে যেতে উদ্বুদ্ধ করে। তাঁর এলাকায় যে মুক্তি বাহিনী সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয়, তিনি ছিলেন তাঁর আহবায়ক। সেই সময় তিনি কালিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

মে, ১৯৭১ এর গোড়ার দিকে শহীদ শেখ আব্দুস সালাম পাকিস্তানী বাহিনীর হাতে বন্দী হন। জানা যায়, তাঁর নিজের কবর তাঁকেই খুড়তে হয়েছিল। ১৩ই মে এই মহান দেশ প্রেমিক শেখ আব্দুস সালাম শহীদ হন।বিনম্র শ্রদ্ধা।

( সংগৃহীত)

Author: রক্তবীজ ডেস্ক

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts