স্বাধীনতা ও দিগম্বর কিশোরী/ জান্নাতুল ফেরদৌসী

স্বাধীনতা

তোমার স্বপ্নের সোনালী ভুবনে,
লাল সবুজ পতাকা নিয়ে
হেসে খেলে  উল্লাস করে
উড়ে বেরাবে বলেই স্বাধীনতা।
তোমার দিঘীর জল জ্বলবে,
মাছরাঙা,পানকৌড়ী,বালিহাঁস খেলবে,
ভাদ্র মাসে ভরা পূর্ণিমায়
তাথৈ তাথৈ নাচবে বলেই স্বাধীনতা।
কঁচি কলাপাতার মতো সবুজ
কুসুমের মতো কোমল পেলব মন
নদীর মতো প্রবাহমান তুমি
বাধাহীন  চলবে বলেই স্বাধীনতা।
অথচ কি এক অদ্ভুত ঝড়
ভেংগে দিলো স্বপ্নিল সম্ভাবনা।
তোমার নাভির নিচে ছিল
অপার সুখের নির্মল স্রোত।
তুমি ছিলে ভীষণ সাহসী
মাত্র বার কি তের তুমি
তোমার চোখে চিন্তার রেখা, মুখে মুক্তির স্লোগান।
উন্মুক্ত  আকাশের দিকে আঙুল যেনো মানুষের সমান।
মুক্তির  উল্লাসে মাতোয়ারা তুমি
চোখে মুখে সুখের স্বপ্ন
উদ্দিপনায় নাচে দেহ  মন।
তোমার উরুর ভাঁজ যৌবনের রেখা
বুকের উর্বরতা নিতম্বের প্রসরতা
তখনো চোখে পড়ার মতো  নয়।
তবুও শিয়াল শকুন হায়নার চোখ সেখানেই যায়
লোলুপ  দৃষ্টিতে তুমি হরিণ শাবক
হিংস্র হায়েনা পশুরা  তালুতে তুলে,ঝুমুর তালে নাচালো তোমায়।
মাংসাশী দাতের কামড়ে ক্ষতবিক্ষত হল
ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল  বুকের জমিন।
লাঙ্গল চললো অবলীলায় বাধ বিচার নেই উর্বরতায়।
নাভিদেশ হলো রক্তাক্ত প্রান্তর
রক্ত রক্ত খেলা রক্তস্নাত  তুমি
সে কি পৈশাচিক নির্যাতন!
কি নির্মম  নিষ্ঠুর অত্যাচার।
তুমি গোঙড়ানির মতো করলে চিৎকার।
তারপর নিঃশব্দ নিথর দেহ।
ওদের উল্লাস উচ্ছ্বাসের স্রোতে ভেসে তুমি চলে গেলে  ওপাড়ে,
শুধু পড়ে রইলো  দিগম্বর দেহ।
সবুজের মাঝে লাল থাকবেই চিরকাল।
তোমার উদোম শরীর ঢেকে গেলো
তোমারই অর্জিত অম্লান পতাকায়।
তুমি গর্বিত স্বাধীন বাংলায়।
আর আমাদের অহংকার অমর স্বাধীনতা।

ডা. জান্নাতুল ফেরদৌসী
ডা. জান্নাতুল ফেরদৌসী

Author: ডা. জান্নাতুল ফেরদৌসী

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Related posts