খনার বচনে বিবাহযোগ্যা নারী নির্বাচন পদ্ধতি

খনার বচনে বিবাহযোগ্যা নারী নির্বাচন পদ্ধতি

আজ থেকে ১৫০০ বছর পূর্বে জন্ম নেওয়া ইতিহাসের এককিংবদন্তি ‘খনা’ বা ‘ক্ষণা।‘ কোন এক শুভক্ষণে তার জন্মবলে নাম দেওয়া হয় ‘ক্ষণা।‘ আর ‘ক্ষণা‘ থেকেই ‘খনা‘ নামের উৎপত্তি বলে মনে করা হয়। খনা ছিলেন সিংহলরাজার কন্যা। কথিত আছে, খনার আসল নাম লীলাবতী।তিনি ছিলেন জ্যোতির্বিদ্যায় পারদর্শী। তাঁর রচিতভবিষ্যতবাণীগুলোই মূলত ‘খনার বচন’ নামে আমরাজানি।         খনার বচনে বিবাহযোগ্যা নারী নির্বাচন পদ্ধতি প্রথম মত ধুম্রবর্ণা অধিকাঙ্খী অথবা রোগিণী। বাচালা অথবা হয় পিঙ্গল বরণী। নক্ষত্র নামিকা হয় বৃক্ষের নামিনী। নদী পক্ষী অহি কিংবা নামে অন্তগিরি ভীষণ নামিকা কিম্বা দুতী নামধারী। এসব বিবাহযোগ্যা…

Read More

বৈশাখে ‘তুমি’

বৈশাখ, জানো প্রতিবারই ভাবি তুমি যখন আসবে আমার মন এক অজানা অতৃপ্ত ভালবাসায় ভাসবে। তখন আমি আমার সেই খুঁজে পাওয়া মানুষটির সাথে সুখে-দুখে, হাতে হাত রেখে, যেন তুমি দেখেই বুঝতে পারো আমরা দু’জন চলছি একই পথে; বেলী ফুলের গহনা, লাল পেড়ে সাদা শাড়ি আর চুড়ি হাতে ভোরের আলো পৃথিবী স্পর্শ করতেই নিয়ে যেতাম তোমার সঙ্গে দেখা করাতে। সেই দিন আমি ওকে দেখতে চাইবো, আমার বেলী ফুলের রঙে সারা জীবনের সব চাওয়া-পাওয়ার কথা বলবো নানান ঢঙে; ভালবাসার সহ্য ক্ষমতা কতটুকু আমি তা জানিনা। আমার থেকে বেশি ভালবাসবে, এটা আমি একদমই মানিনা…

Read More