২৫ বৈশাখের সাজ

সকালের সাজঃ বৈশাখ মানে শুধু ১ বৈশাখ নয়, পুরো বৈশাখ মাস। পহেলা বৈশাখ ভোর বেলা রমনা, টি.এস.সি আর চারুকলায় না গেলে বৈশাখ মনেই হয় না। তেমনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে না গেলে ২৫ বৈশাখে মন ভরে না। আর ২৫ বৈশাখে রাবীন্দ্রিক সাজ হলেই ভাল হয়। যেমন  এদিনে সবাই সাদা আর লাল এর সংমিশ্রণে বিভিন্ন শাড়ি এক প্যাচে ঢংয়ে পরতে পারেন।  তবে  পুরো সাদা আর লাল চওড়া পাড়ের চওড়া শাড়ি পরলে বৈশাখের আমেজটা বেশি প্রকাশ পায়। সাথে ব্লাউজটা লাল রঙের ঘটি/থ্রি-কোয়াটার হাতায় রং বেরঙের লেস বা নকশার তৈরী হতে পারে, কুচিও হতে পারে।…

Read More

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ও তার সুভা

একজন কবির কাছ থেকে এর চেয়ে আর কি আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন দেখতে পারি? কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এমন একজন কবি যিনি ৫২টি কাব্যগ্রন্থ, ৩৮  টি নাটক, ১৩ টি উপন্যাস, ৩৬ টি প্রবন্ধও অন্যান্য গদ্য সংকলন এর প্রণেতা।  যা তাঁর জীবদ্দশায় ও তাঁর মৃত্যুর পর প্রকাশিত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের গান তার শ্রেষ্ঠ কীর্তি। তিনি দুহাজার চিত্রকল্পের সার্থক চিত্রশিল্পী এবং পঁচানব্বইটি গল্পের সার্থক গাল্পিক। কবি রবীন্দ্রনাথের ছোটগল্প ‘সুভা’ তাদেরই অর্ন্তভুক্ত।   বাংলা সাহিত্যে ‘সুভা’ একটি অনন্য নাম। মাত্র দুই পৃষ্ঠার একটি ছোটগল্পকে কেন্দ্র করে একটি সফল ছায়াছবি  থেকেই বোঝা যায় তিনি কতবড় মাপের একজন…

Read More

বিশ্বকবির চরণে ‘মুগ্ধ জননীর’  প্রণাম

সাগর সৈকতে অধিষ্ঠিত  থেকে নিশি অবসানে, নির্ঘুম নয়নে, অরুণরবির  রাজসিক উদয় অবলোকনের  বিরল সৌভাগ্য  আজও আসেনি অধমের অর্জনে।তবে  আমি  দেখেছি গোধূলির রক্তিম আকাশ।দেখেছি অনশ্বর সৌররাজের  ধীর গম্ভীর অস্তাচল নির্গমন।দমিত নমিত হয়ে জল ছুঁয়ে মহর্ষির পদস্পর্শ করে প্রণাম  জানাবার নিরন্তর প্রয়াস পেয়েছি বারবার শতবার ! আটলান্টিক আমার নাগালের ভিতর  প্রায় একযুগ।সাগরের স্বাদ পেতে আকন্ঠ জলপান অনাবশ্যক ! অসম্ভবও বটে !অনাবশ্যক একারণে যে একবিন্দু জল আস্বাদন করলেই  অনন্ত অসীম বারিরাশির স্বাদ অনুভবে  লব্ধ হয়। সীমাহীন অন্তহীন অতলান্ত মহাসলিলকে আত্মস্থ করাও  সম্ভব না। কেবল অঞ্জলি ভরে তারে ক্ষণকাল অন্তরীণ করা যায়।সাগরে অবগাহন করে…

Read More

এই বৈশাখ সেই বৈশাখ

গ্রাম ছেড়ে একসময় চলে আসি রাজধানী ঢাকায়। পেছনে রয়ে যায় প্রিয়বন্ধু গাছ-মাটি- ঘাস। অনন্ত অনিশ্চয়তার মাঝে ফেলে আসা সেই জীবন। জীবন মানে তো এ ভাবেই খুঁজে যাওয়া। স্মৃতি-বিস্মৃতির কুয়াসাজাল ছিঁড়ে ছেলেবেলার কত জলছবি বড়বেলায় স্পষ্ট হয়ে ওঠে। মনে পড়ে গ্রামের সেই উদাসকরা নকসীকাঁথার মাঠ। মাঠজুড়ে রকমারি বৈশাখী মেলা। দৃষ্টিনন্দিত হরেকরকম হস্তশিল্প। ছোটদের জন্য মনকাড়া পুতুল, বাঁশি। কত রকমের মিষ্টিজাত দ্রব্য। নিত্যদিনের গৃহসামগ্রী। মনের থেকে আজ সেইসব ছবি হারিয়ে ফেলেছি। সুকন্ঠী প্রতিমা ব্যানার্জীর  উদাস করা  সেই গানটি–‘আমি মেলা থেকে তালপাতার এক বাঁশি কিনে এনেছি। বাঁশি কই আগের মতো বাজে না, মন…

Read More

সম্পাদকীয়

যার চেতনার রংয়ে পান্না সবুজ আর চুনি লাল হয়ে ওঠে তিনি রবীন্দ্রনাথ। আমাদের চিরচেনা রবীন্দ্রনাথ। আমাদের রক্ত কনিকার বুদ্বুদে, নিঃশ্বাসের আন্দোলনে ,ঘুমের গাঢ়ত্বে, জাগরণের আনন্দে যিনি জেগে থাকেন তিনি রবীন্দ্রনাথ। আমাদের কবিগুরু, বিশ্বকবি, আমাদের সকল ধ্যান, সকল জ্ঞান সকল  আবেগের কেন্দ্রবিন্দু। আমরা তাঁকে আশ্রয় করে বাঁচি, তাঁর প্রশয়ে বাঁচি। যে কোন জরা, প্রাপ্তি, অপ্রাপ্তি, বেদনায় ওপরতলার আমরা তথকে নিম্নতলায় অবস্থান যে রিক্সাওয়ালা, মজুরও জীবনের কোন না কোন সময় রবীন্দ্রনাথকে আশ্রয় করেন। গুণগুণিয়ে গেয়ে ওঠেন, ‘আমি চিনি গো চিনি তোমারে ওগো বিদেশীনি’ কিংবা ‘আমার মুক্তি আলোয় আলোয় এই আকাশে।’ আজ সেই…

Read More

জ্যোর্তিময় পুরুষ

তুমি তো মেঘ নও, জল নও আবার শিশির বিন্দুও নও উচ্চশ্রেণী মধ্যশ্রেণী  বা নিম্নশ্রেণীও নও অন্তহীন জ্যোতির এক আলোকিত আভা। তুমি সেই পথে হাঁটো যে পথে মেঘেরা আলো জ্বালে, তুমি সেই আলো ছড়াও যে আলোয় সৃষ্টির প্রথম সকাল হয়েছিল উদ্ভাসিত। নক্ষত্র ভরা মায়াবী জ্যোৎস্নারাতে তোমার বেহালার সুরে ঘুম ভেঙ্গেছে আমার। হিরণ্ময় এ রাতে,তোমার পায়ের ছোঁয়ায় শান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়েছে ঘাসেরা। শিশির বৃষ্টিতে নিথর বনস্থলী, কার যেন গোপন ইশারার অপেক্ষায়। প্রকৃতির এমন অবিরল সজ্জায় তৃপ্তির বাতাসে অন্তর ভরেছে। পৃথিবীর শরীর থেকে খসে পড়া ছোট্ট এ নগরী যার সীমা বলয়, উত্তর মেরু,…

Read More