বঙ্গবন্ধু: তিনি অবিসংবাদিত, তিনি কিংবদন্তী, তিনি জ্যোতির্ময়

কিংবদন্তীর মৃত্যু হয়না, যুগ থেকে যুগান্তর প্রদীপ্ত আলো হয়ে, আলোকিত করে সভ্যতা, বঙ্গবন্ধু তেমনই এক কিংবদন্তীর নাম। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যত লেখা হয়েছে পৃথিবীতে এত লেখা বোধহয় কোন নেতাকে নিয়ে লেখা হয়নি। আমি বঙ্গবন্ধুর নামের উপর কিছু লিখব এমন যোগ্য কেউ নই, তবুও তাঁকে ভালোবাসি বলে তাঁর সম্পর্কে কিছু একটা লিখতে সাহস করে শুরু করলাম।   ১৭ মার্চ, ১৯২০ টুঙ্গিপাড়ার এক নিভৃত পল্লীতে জন্ম নেয়া মা-বাবা আর প্রতিবেশীর আদরের সেই দুরন্ত খোকা, কৈশোরের বেড়াজাল ছেদ করে দুর্দান্ত যৌবনের তেজস্বী শেখ মুজিব। বাঙালীর যতগুলি অর্জন, ইতিহাস, প্রেরণা, উৎসাহ, স্বপ্ন তার সবটুকু জায়গাজুড়ে…

Read More

১৯৭৫য়ের সেই কালো দিনটিতে

  সিলেট থেকে ঢাকায় বদলী হয়ে এসেছি সবেমাত্র। মালপত্র সবই পড়ে আছে অফিসের গোডাউনে। পাঁচতলা   একটি বাড়ির তিনতলা এপার্টমেন্ট ভাড়া করা হয়েছিলো তড়িঘড়ি করে রাজারবাগ এলাকায়। আমরা এসে উঠলাম সেই বাড়িতে ১২ কি ১৩ই আগষ্ট। সেদিন ছিলো ১৫ই আগস্ট। আমি ভোরে ঘুম থেকে উঠেই নাস্তা বানাবার জন্যে রান্না ঘরে ঢুকেছি।পরোটা তৈরি করবো বলে আটা মাখছিলাম।  হঠাৎ শুনি দোতলা থেকে খোলা জানালা দিয়ে রেডিও থেকে উচ্চস্বরে  আওয়াজ ভেসে আসছে আমি মেজর ডালিম বলছি। স্বৈরাচারী শেখ মুজিবকে হত্যা করা করা হয়েছে। সাথে সাথে আমার হাত থেকে আটার পাত্রটা মেঝেতে ঠন করে পড়ে…

Read More

আমি চাঁদ নহি চাঁদ নহি অভিশাপ

আমি চাঁদ নহি চাঁদ নহি অভিশাপ

এ বছরের ৭ আগষ্ট চন্দ্রগ্রহণ। চন্দ্রগ্রহণের সময় দেখা মিলবে ‘চাঁদ’কে। চন্দ্রগ্রহণের স্থিতিকাল হবে ১ ঘন্টা ৫৭ মিনিট। অর্থাৎ ৭ আগষ্ট রাত ১১টা ২২ মিনিটে চন্দ্রগ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে ৮ আগস্ট রাত ১টা ১৯ মিনিটে। চাঁদ গ্রাস হওয়া দেখতে দেখতে ভাবনায় দেখা দিবে শুধুই চাঁদ। রাতের ঘন অন্ধকার দূর হয় চাঁদ উঠলে, পূর্ণিমার দিনে চাঁদের শান্ত সিন্ধ আলোয় পৃথিবী প্লাবিত হয়। এসব দেখে নাকি আদিম মানুষ ভয়ে-বিস্ময়ে চাঁদকে দেবতা বলে ভাবতে শুরু করে। পৃথিবীর সমস্ত প্রাচীন সভ্যতায় চাঁদের বন্দনা-গান গাওয়া শুরু হয়। ইংরাজী Month (বাংলায় মাস) শব্দটি এসেছে চাঁদের ইংরেজি প্রতি…

Read More

রবীন্দ্র-সাহিত্যে কৃষি

রবীন্দ্র-সাহিত্যে কৃষি রবীন্দ্র-সাহিত্যের বিশাল বিস্তৃতির মধ্যে কৃষি বিজ্ঞানও বিষয়াশ্রিত হয়েছে। মাটি, গাছ-পালা, বন-বনানী ইত্যাদি প্রাকৃতিক বিষয়াবলী রবীন্দ্রনাথ তার অমর সাহিত্যকর্মে বিভিন্নভাবে লিপিবদ্ধ করেছেন। বিজ্ঞানের এই নিরস বিষয় সাহিত্যরসে সঞ্জীবিত হয়ে আমাদের নিকট মূর্ত হয়েছে। পৃথিবীর আদি শিলাস্তর ক্ষয় পেতে পেতে মাটিতে পরিণত হয়েছে। বড় বড় গাছ-পালা, লতা-গুল্ম, ঘাস, ছত্রাক প্রভৃতি উদ্ভিদ কখনো প্রত্যক্ষ কখনো পরোক্ষভাবে মাটি তৈরিতে সহায়তা করছে। পৃথিবীর আদি থেকেই এ কাজ চলছে। রবীন্দ্রনাথ তাই তার ‘বনবাণী’ শীর্ষক বৃক্ষ বন্দনা কবিতায় উদ্ভিদের গুণকীর্তণ করেছেন      “…………মৃত্তিকার হে বীর সন্তান,       সংগ্রাম ঘোষিলে তুমি মৃত্তিকারে দিতে মুক্তিদান       মরুর দূর্গ হতে……….।” মাটি…

Read More