নারী কিংবা পুরুষ নয়, মানুষ নির্যাতন বন্ধ করি। শান্তির পৃথিবী গড়ি

ইভটিজিং শব্দটার সাথে আমরা ওতপ্রোতভাবে জড়িত। স্বাভাবিকভাবে আমরা মেয়েদের ক্ষেত্রেই ব্যাপারটাকে বেশি গুরুত্ব সহকারে দেখে থাকি। সরকার ইভটিজিং এর উপর বেশ কিছু আইন কানুন করেছেন। তাৎক্ষণিকভাবে মোবাইল কোর্টের মাধ্যেমেও ইভটিজারদের শাস্তি দেওয়া হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ইভটিজাররা আসলেই ইভটিজিং করেছেন নাকি কোন ভুল বোঝাবুঝির রেশ থেকে সে শাস্তি পাচ্ছে তা যথাযথ প্রমাণ না করেই বা প্রমানণিত না হওয়া সত্ত্বেও শাস্তি তাকে পেতে হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে আমার ব্যক্তিগত ধারণা থেকে বলছি, অনেক সময় উগ্র অস্বাভাবিক উচ্চাভিলাসী কিছু মেয়ের স্বেচ্ছাচারিতা বা ভুল বোঝার কারণে অনেককেই অপরাধ না করেও শাস্তি ভোগ করতে হচ্ছে। এমন…

Read More

অবিনশ্বর

জান্নাতুল ফেরদৌসী

জন্ম অমরাবতিতে অমর হতে অলিন্দে আনন্দ আভা ছড়াতে কাল মহাকাল কালের স্রোতে সৃষ্টিতে অক্ষয় অবিনশ্বর ধরায়। শক্তি সাহস দুর্বার গতি কলুষিত মনে আলোর দ্যুতি। অন্তরে মনে মননশীলতার বিকাশ মানবিক গুণাবলির অমিয় সূচক শ্রেষ্ঠ সৃষ্টিতে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ ভেতরে গুমরানো সততার আক্ষেপ সত্যের সংগ্রামে সাহসী সৈনিক দুর্বার দুর্জয়ে দুর্দান্ত দানবীর সমুদ্রে ভাসমান শুভ্র নাবিক জরাজীর্ণ হতাশাগ্রস্ত দুঃখী মানুষ দুর্জয় বাংলায় পাবে অনন্তসুখ সীমাহীন ভালবাসা বাঁচার প্রত্যয় সামাজিক বলয় বাড়ন্ত শিশু শৈশবে নির্যাতনে মৃত্যু নয় অমর অক্ষয় কালের যাত্রায় দুর্জয় বাংলা বিশ্বের বিস্ময়। Share this…FacebookGoogle+TwitterLinkedinPinterestemail

Read More

মানবাধিকার : নারী ও স্বাধিকার

মানবাধিকার

প্রতিটি মানুষের এক ধরনের অধিকার থাকে যা জন্মগত ও অবিচ্ছেদ্য। যা মানুষ স্ব-অধিকার বলে ভোগ করবে, চর্চা করবে, হৃদয়ে লালন করবে নির্ভয়ে স্বগৌরবে, স্বদর্পে । কিন্তু কোন অবস্থাতেই তা অন্যের ক্ষতি কিংবা প্রশান্তি নষ্ট করে নয়। মানবাধিকার সব জায়গায় সবার জন্য সমান প্রযোজ্য এ বিশ্বাসে আমাদের বলিয়ান হওয়া একান্ত প্রয়োজন। মানবাধিকার একই সাথে সহজাত ও আইনগত অধিকার প্রতিটি মানুষের জন্য। যদিও অধিকার প্রকৃতপক্ষে কি তা এখনো দর্শনগত বিতর্কের বিষয় তবুও আমার মতে মানবাধিকার বলতে আমরা যাই বুঝি না কেন তাই স্থানীয়, জাতীয়, আঞ্চলিক, সর্বোপরি সকল আইনের অন্যতম দায়িত্ব হল তা…

Read More

বীরাঙ্গনা : বিড়ম্বনা ও স্বাধীন বাংলাদেশ

বীরাঙ্গনা শব্দের আভিধানিক অর্থ  ‘বীর নারী’। যুদ্ধকালীন সময়ে যে সকল নারীরা লাঞ্ছিত,  নির্যাতিত, নিপীড়িত হয়েছেন তাঁরাই বীরাঙ্গনা।  নির্মম জঘন্য যৌন অত্যাচার নীরবে সহ্য করে জীবনকে রক্ষা করেছেন যারা তাঁরাই বীরাঙ্গনা। যুদ্ধের পর স্বাধীন দেশে বীর নারীদেরকে ধর্ষিতা রমণী, দুঃস্থ রমণী’ ক্ষতিগ্রস্ত মহিলা, ধর্ষণের শিকার, যৌন নির্যাতনের শিকার, ভাগ্যবিম্বিতা ইত্যাদি নামে  অভিহিত করা হত। কিন্তু  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই সমস্ত ভাগ্যহীনা, ভাগ্যবিড়ম্বিতা নারীদেরকে বীরাঙ্গনা খেতাবে ভূষিত করেন। তিনি তাদের মর্যাদা সমুন্নত করেন। ১৯৭২ সালের ১৮ই ফেব্রুয়ারি সরকার ‘বাংলাদেশ মহিলা পুনর্বাসন বোর্ড’ গঠনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধকালীন নির্যাতিত ধর্ষিতা মহিলাদের জাতীয়…

Read More