সূর্য ও পৃথিবী

-সূর্য!   -পৃথিবী!   – আমার চারপাশ তুমি জড়িয়ে আছো, আমি হাসছি তোমার আলোয়!   তোমার বুকেই তো আছড়ে পড়ি রোজ, তুমি আছো বলেই তো দিন শেষে অস্ত যাই।   প্রতিদিন পূব আকাশে হেসে উঠব বলে নতুন হয়ে নেমে আসি সব বাঁধা অতিক্রম করে,   সর্ববেগে, সর্বত্র!   তোমার জন্যই তো আমার বুকে হেসে ওঠে শস্য। ফুলে- ফলে সুশোভিত হই প্রতিদিন! সাগরে   বাষ্প ওঠে, মেঘ জমে, কেঁপে ওঠে নভোমন্ডল। অতঃপর বারিধারায় ঝরে পড়ে অবিরত। আহা সূর্য!   তুমিই তো আরাধ্য আমার!   তুমি আছো বলেই তো নির্দিষ্ট পথে আমার…

Read More

যাব একদিন

তুমি তো জানোই তোমার ওখানে যাব একদিন; নির্মেদ দুপুর কালো রাজপথ আর হেমন্ত বেলার মিষ্টি রোদ গায়ে মেখে। দেরিদা-ফুকো আওডাতে আওডাতে হেলেঞ্চা বালিকা হয়ে; কোয়েলের শিস আমাকে চিনিয়ে দেবে মুঠো ঘাস ছাতিমের ঘ্রাণ… নিসর্গের স্মৃতি আত্মগৌরবের বিভূতি আর দূর্দান্ত সাহসে উন্মাতাল হয়ে যাব ঠিক! তখনও হেমন্তকাল সকালের মিঠে রোদ শিউলির নরম কোমল সাদা আর গাঢ় কমলার উজ্জ্বল রং পৃথিবীকে করে যাবে উদ্ভুত মায়াময়…

Read More

পলিম্যাথ কবি!

polymath kobi

একজন কবির জন্য একটি কবিতা লেখা হবে তাই একজন কবি রোজনামচা পাল্টে ফেলে তার   তারপরও পান না কোন অথৈই কিনার! আকাশ নামিয়ে তাই মেঘ এনে রাখে বৃষ্টির জলে ভরে কস্তুরী ঘ্রাণ আকাশের তারায় মাখে সোডিয়াম আলো চাঁদের  কলঙ্কে রাখে রাশি রাশি ফুল সূর্যের সান্নিধ্যে সে থাকে দিন রাত কিন্তু কবিকে পান না সে কখনো নাগাল! কবি থাকে সূর্যেরও বেশি গতিবেগে তাই কবিকে স্পর্শ করতে মর্ত্যেই নামিলেন শেষে। যেখানে সারি সারি আইনের লোক নিয়ন বাতির আলোয় ফুল জল মাখে মিনিটে মিনিটে করে কোটি টাকা ব্যয়- পৃথিনীকে ধরে ফেলে হাতের মুঠোয়…

Read More

অভিমানের এভারেস্ট

অভিমানের এভারেস্ট নিয়ে জীবন চলে না। অভিমানের এভারেস্ট যখন ভালোবাসার আটলান্টিক হয়, তখন হৃদয়ের ওসারটিল কেমোথেরাপি! আইলা, নার্গিস, টাইফুন ছুঁতে পারে না প্রেমের নায়াগ্রা। মাধবকুন্ডর জলপ্রপাতের জলোচ্ছটায়- পুরো পৃথিবীর গোলাপ তখন বসরীয় শোভায় হেসে ওঠে।  

Read More