ঈদুল আজহা এবং কোরবানি/ মাসুদ রানা

ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় দুটো ধর্মীয় উৎসবের একটি হলো ঈদুল আজহা। বাংলাদেশে এই উৎসবটি ‘কোরবানির ঈদ’ নামে পরিচিত। ঈদুল আজহা মূলত আরবি বাক্যাংশ। এর অর্থ হলো ‘ত্যাগের উৎসব’। আসলে এটির মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ,ত্যাগ করা। এ দিনটিতে মুসলমানেরা তাদের সাধ্যমত ধর্মীয় নিয়মানুযায়ী উট, গরু, দুম্বা কিংবা ছাগল আল্লাহর নামে কোরবানি করে বা জবাই দেয়। ঈদ উল আজহার নামাজ : ঈদ উল আযহার নামাজ দুই রাক্বাত। এটি সকল মুসলমান পুরুষের জন্য ওয়াজিব এবং মুসলমান নারীদের জন্য সুন্নত। এ নামাজ জামায়াতের সঙ্গে আদায়যোগ্য। বাঙালি মুসলমানরা নামাজের পরে পুরো পরিবার একত্রে সকাল…

Read More

এক নজরে বঙ্গবন্ধু

শেখ মুজিবুর রহমান (১৭ মার্চ ১৯২০-১৫ আগস্ট ১৯৭৫) বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি ও ভারত উপমহাদেশের একজন অন্যতম প্রভাবশালি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। যিনি বাঙালির অধিকার রক্ষায় ব্রিটিশ ভারত থেকে ভারত বিভাজন আন্দোলন এবং পরবর্তীতে পূর্ব পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নেতৃত্ব দান করেন। প্রাচীন বাঙালি সভ্যতার আধুনিক স্থপতি হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমানকে বাংলাদেশের জাতির জনক বলা হয়ে থাকে। তিনি মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী প্রতিষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সভাপতি, বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং পরবর্তীতে এদেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। জনসাধারণের কাছে তিনি শেখ মুজিব এবং শেখ সাহেব হিসেবে বেশি পরিচিত এবং তার উপাধি বঙ্গবন্ধু।…

Read More

প্রসঙ্গ : আন্তর্জাতিক নারী দিবস

নারী দিবস​

আন্তর্জাতিক নারী দিবস (আদি নাম আন্তর্জাতিক কর্মজীবী নারী দিবস) প্রতি বছর ৮ মার্চে পালিত হয। বিশ্বব্যাপী নারীরা একটি প্রধান উপলক্ষ হিসেবে এই দিবস উদযাপন করে থাকেন। বিশ্বের একেক প্রান্তে নারী দিবস উদযাপনের প্রধান লক্ষ্য একেক প্রকার হয়। কোথাও নারীর প্রতি সাধারণ সম্মান ও শ্রদ্ধা উদযাপনের মুখ্য বিষয় হয়, আবার কোথাও মহিলাদের আর্থিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠাটি বেশি গুরুত্ব পায়। এই দিবসটি উদযাপনের পেছনে রয়েছে নারী শ্রমিকের অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাস। ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দে মজুরিবৈষম্য, কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট করা, কাজের অমানবিক পরিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের রাস্তায় নেমেছিলেন সুতা কারখানার নারী…

Read More

৭ মার্চের ভাষণ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান​

আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ । আসুন একবার ফিরে দেখি ১৯৭১ এর এই দিন আর তার আগের প্রেক্ষাপট । ১৯৭০ সালে আওয়ামী লীগ পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। কিন্তু পাকিস্তানের সামরিক শাসকগোষ্ঠী এই দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে বিলম্ব করতে শুরু করে। প্রকৃতপক্ষে তাদের উদ্দেশ্য ছিল, যে কোনভাবে ক্ষমতা পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিবিদদের হাতে কুক্ষিগত করে রাখা। এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান ৩রা মার্চ জাতীয় পরিষদ অধিবেশন আহ্বান করেন। কিন্তু অপ্রত্যাশিতভাবে ১লা মার্চ এই অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য মুলতবি ঘোষণা করেন। এই সংবাদে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে।…

Read More

ভাষার লড়াই শেষ হয়নি

সকল ভাষা শহিদ ও ভাষাসৈনিকের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা রেখে লেখাটি শুরু করছি। শহীদ দিবস বা একুশে ফেব্রুয়ারি  যে অভিধায়ই ডাকি না কেন এর অর্থ একই। এ নিয়ে কাউকে লিখতে বলা হলে বা কেউ লেখা শুরু করলেই তিনি এর ইতিহাস তুলে আনেন। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসকে অবনত মস্তকে সালাম জানাই। কিন্তু এ লেখাটিকে আমি সেদিকে নিয়ে যেতে চাই না। ভাষা আন্দোলনের বয়স ৬৫ বছর হতে চললো। বাঙালির আন্দোলনের মুখে পাকিস্তান সরকারই বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়েছিলো। এরই ধারাবাহিকতায় আমাদের স্বাধিকার আন্দোলন ও নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন…

Read More

বিশ্ব ইজতেমা, ধর্মীয় অনুভূতি এবং অবকাঠামোগত উন্নয়ন

বাংলাদেশ মুসলিম অধ্যুষিত দেশ। এ দেশের বেশিরভাগ মানুষ ধর্মীয় অনুভূতি সম্পন্ন। সব মানুষ ধর্মীয় অনুশাসন পুঙ্খানুপুঙ্খ পালন না করলেও ধর্মের প্রতি তারা খুবই অনুরাগী। বিশ্ব ইজতেমা ধর্মের কোনো অনুষঙ্গ নয়। ‘ইজতেমা’ একটি আরবি শব্দ যার আভিধানিক অর্থ ‘সম্মেলন।’ তাই একে ধর্মীয় সম্মেলন বলা যেতে পারে। বাংলাদেশের জন্মের পূর্বে তদানিন্তন পাকিস্তান আমলে ইজতেমার শুভ সূচনা হ​য়​। ১৯৪৬ সালে প্রথম কাকরাইল মসজিদে ইজতেমার আয়োজন করা হয়। এরপর ১৯৪৮, ১৯৫০ এবং ১৯৫৪ সালে চট্টগ্রামের হাজী ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত হয় ইজতেমা। এখন যেমন প্রতি বছর ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়; শুরুর দিকে তেমনটা ছিলো না। ১৯৫৮ সালে…

Read More