শিশুকে প্রকৃত শিক্ষা দিন – তাজনাহার মিলি

শিশুকে প্রকৃত শিক্ষা দিন - তাজনাহার মিলি

শিশুকে প্রকৃত শিক্ষা দিন - তাজনাহার মিলি

কোন বিনিময় ছাড়াই নিজের আনন্দ সবার মধ্যে বিলিয়ে দেয়াই মানব জীবনের আনন্দ । অথচ নিজের পিতা আর চাচা পাঁচ বছরের মায়াবী বালককে হত্যা করে ঝুলিয়ে রেখেছে প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর জন্য। এদের শাস্তি প্রকাশ্যে, তাৎক্ষণিকভাবে ফাঁসিতে ঝোলানো।

মানব শিশু জন্মায় মা/বাবার কোলে। শিশুর ভবিষ্যৎ মানবীয় গঠন হয় বাবা/মায়ের সার্বিক ভালবাসার বন্ধনে। এর গুরুত্ব অপরিসীম।

শিক্ষা/বিদ্যা আমরা অর্জন করি বাবা/ মায়ের আশ্রয়ে থেকে। বনের পশু পাখির মত উড়ে যেয়ে নয়। এখনকার বাবা/মা’রা দুটি/একটি সন্তানের মধ্যে নিজের প্রাপ্তি পেতে প্রাণপণ চেষ্টা করেন। কিন্তু সার্বিক কল্যাণময় মানবিক শিক্ষা প্রয়োজন। জ্ঞান অর্জন করে স্বশিক্ষিত হয়ে স্বনির্ভর হওয়ার স্বপ্নই আসল। সাথে জীবিকার সংযোগসূত্র আছে।

বর্তমানে লেখা-পড়া অত্যন্ত ব্যয়বহুল ও কঠিন। তাই সবাই ফাঁক ফোকরে অতি সহজে সনদপত্র জোগাড়ে তৎপর। তাতে বাবা/মা/শিক্ষককূল জড়িত। এ প্রসঙ্গে উল্লেখ ২০১৫ এর একটি ঘটনা উল্লেখ করছি। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করে ৩জন মেয়ে আমার নীচের তলা ভাড়া নেয়। পূর্ণি চাকমাও তার মধ্যে ছিলেন। ওর বোন ধামরাই এর এক স্কুলের প্রধান শিক্ষক। তখন শীতকাল, পিএসসি পরীক্ষার সময়। আমার বাসার মূল ফটক রাত ১১টায় বন্ধ করি। পূর্ণি হঠাৎ এক রাতে ১টায় এসে বলেন, মাম গেট খুলে দিন। আমার বোন ছিল এখানে। বাসা থেকে বেরোবে। আমি বেরিয়ে ওর বোনের কাছে জানতে চাইলাম কেন?

ওর বোনের স্বামীও এ.এস.পি । অনেকবার জুরাজুরি পর বললো, পিএসসি এর পরীক্ষার প্রশ্ন পাওয়া যাচ্ছে। তাই টাকা নিয়ে জোগাড়ে যাবেন। কেন করতে হবে? বললেন, নাহলে তার স্কুলে ছাত্র/ছাত্রী কমে যাবে। আমি কিংকর্তব্যবিমূড়। পিএসসি থেকে নকল তাহলে কি দরকার? কেন দরকার? আমরা তো ইংরেজি ভাষা ঐচ্ছিক শিখেছি। বাংলা মাধ্যমে সবকিছু আয়ত্ব করেছি। খোদ ইসরাইল সারা পৃৃথিবীতে ব্যবসা চালাচ্ছে। সন্ত্রাস করছে। তাদের দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় ভাষা হিব্রু।

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে বিভিন্ন ভাষা শিখতে হয়। ঠিক আছে। কোর্স করবে। পিএইচ.ডি করে গবেষক হতে গেলে বিশেষজ্ঞ হতে হলে দরকার। শুধুমাত্র জীবিকার জন্য কি আমরা বিদ্যা গ্রহণ করি ? বিদ্যা জীবনে ব্যবহার করি জ্ঞান লাভ ও প্রয়োজনে।

প্রতিবন্ধি শিশুদের স্পেশাল নিড্স প্রয়োজন। সেজন্য সরকারী/বেসরকারী/এনজিওগুলির আন্তরিক ঐক্যবদ্ধ চেষ্টা করা প্রয়োজন।

প্রত্যেক শিশুর কোমল মন এখন পঠন-পাঠনের চাপে বিপর্যস্ত। নকল এর চাপে ব্যাহত। রবীন্দ্রনাথের ভাষায় বলি “ ইদুর দৌড়ে ঠেলে দিয়ে, কিছু পাইয়ে দেয়ার সে যন্ত্রবৎ শিক্ষা” শিক্ষা কর্মযজ্ঞে পরিবার এক নম্বর পাঠশালা। কিন্তু শিক্ষাকগণ একাধারে বাবা,মা ও গাইড। তাদের একান্ত নিবেদিত ভুমিকায় শিশুর মানবিক/জাগতিক বৈষয়িক/আত্মিক জ্ঞান লাভের ইচ্ছা উৎসাহ ও উদ্দীপনা উজ্জ্বল আলোয় পরিণত হয়। আধুনিক সর্বশিক্ষার যুগে তাই একজন মানুষ অত্যন্ত অমানুষ। অমানবিক কাজ করছে। তাই সব শিশুর অন্তরে ভবিষ্যৎ পিতা/মাতার ঘুমিয়ে থাকা ভয়ংকর রূপ বির্নিমাণ হচ্ছে।

বর্তমানে ভার্চুয়াল আগ্রাসনে ধনী, গরীব, মধ্যবিত্ত এককাতারে। অশিক্ষা কুশিক্ষা প্রকট হচ্ছে। সুশিক্ষা কোনভাবেই আয়ত্ব হচ্ছে না। সামাজিক আদর্শ হিসাবে সামনে আদর্শ মানব আজ খুঁজে পাওয়া কঠিন।

তাই শিক্ষার এই আবহ অধিকাংশ ক্ষেত্রে ব্যাহত। মা প্রেমিকের জন্য সন্তান হত্যা করছে। পিতা/চাচা প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজ সন্তান হত্যা করে বুকে ছুরি গেঁথে রাখছে। শিশুর মনস্তত্ত্ব-এর এই বড় ধ্বংস ঠেকানো প্রয়োজন। আজকের শিশু আগামীদিনের বাবা/মা। বড্ড অসহায় আজ সমাজ ও মানবিক মূল্যবোধকে।

শুধু আইন দিয়ে শিশুশিক্ষা ও শিশুকল্যাণ প্রকল্প সফল হবে না। গোড়ায় হওয়া গলদ ঠেকাতে হবে। তেঁতুল গাছে আম ফলবে না। ভাল সুমিষ্ট কলা/ আমের জন্য জমির প্রস্তুতি, সময় ও ভাল বীজ প্রয়োজন। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে আজ বড্ড প্রয়োজন প্রকৃতি পাঠ, বিশ্ব পরিচয়। অবশ্যই সহজভাবে মনে রাখার ভঙ্গিতে, পরিশীলিত, অনুভব করার শিক্ষা আজ শিশুশিক্ষা, শিশুস্বাস্থ্যে প্রয়োজন।

বন্ধু হোন, বন্ধু পাতান সন্তানের সাথে। প্রতিদিন ১ ঘন্টা সময় তার সাথে  নিবিড়ভাবে কাটান। আমাদের মনের কথা ভাগ করে নেয়ার জন্য পাশে চাই ঘনিষ্ট বন্ধু। এই বন্ধুদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খারাপ প্রভাব এড়ানো দরকার। কারণ জীবনের কোন পর্যায়ে কোনটা ভাল, কোনটা খারাপ, সেটা সব সময় অনুভব করে চলতে শিশু বয়সেই ভিত তৈরি হয়। অনেক সময় বন্ধুদের সব কিছুই ভালো মনে হয়। আবার এর মাধ্যমে ভিতরে তৈরি হয় কম্পিউটিশনের মনোভাব। এর সবটাই খারাপ/ভাল নিরুপণ করার মানদন্ড একটু একটু করে সৃষ্টি হয়। ক্লাসের বন্ধুরা গল্পের বই পড়েছে তাই ওকে এক নিঃশ্বাসে পড়ে শেষ করার মনোভাব থাকবে। তা কম্পিউটিশন নয়। নুতন কিছু শিখে বন্ধুদের কাছে সম্মান পাওয়া। বেস্ট বন্ধুর কাছে লুডু/দাবা খেলা শেখা। ইতিবাচক  প্রভাব দরকার। তাই মা/বাবা বড় গাইড। হেলদি কম্পিউটিশন, ক্রিয়েটিভিটি, সিনসিয়ারিটি এর মতো পজিটিভ ইনফ্লুয়েন্স ও সমবয়সী বন্ধুদের থেকে শিখে নেয় ছোটরা। কিন্তু বন্ধু অন্তঃপ্রাণ শিশুটি বন্ধুদের থেকে খারাপ কিছু শিখলে; বাবা/মা বন্ধু হয়ে তৈরি করতে হবে। ছোট থেকে সন্তানের নিজের মত বেড়ে উঠতে সহায়তা করুন। ভাল কাজের প্রশংসা আর খারাপ কিছু থাকলে তা থেকে একটু একটু বেরোনোর পথ শিখিয়ে দিন।

কিশোর/কিশোরী বয়সটাই উড়ে বেড়ানো মন। মানসিক টানাপোড়েন প্রতি মুহুর্তে। জটিল ও কঠিন মুহুর্তে এখনকার বয়লার সদৃশ সন্তানরা সহজেই আত্মহননে এগোয়। ভিখারুন্নেসার অরিত্রী নামের মেয়েটির কথা ধরুন। বাবার অপমানে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করার কোন পদ্ধতি তার ছিল না। অধিকাংশ স্বচ্ছল পরিবারের দুটি/একটি সন্তান। সন্তানদের সমস্তরকম পার্থিব চাহিদা বাবা/মা তাৎক্ষণিকভাবে মেটান। শুধু দেননা তাদের দামী সময়। অন্তরঙ্গ ভালবাসা আবেগ নির্ভর সময়।

বাবা/মায়ের তৈরি সাজানো গোছানো পৃথিবী। যা বাস্তব পৃথিবীর একেবারে আলাদা। সব পাওয়া কিশোর কিশোরী বাইরের কঠিন বাস্তবে মানিয়ে নেয়ার চেষ্টায় হঠাৎ ব্যর্থ হয়। ব্যর্থতাজনিত নানা কষ্ট প্রতি মুহুর্তে আঘাত হানে মনকে। বাস্তবের সাথে সংঘাত হয়। শিশুমনে প্রতিরোধের শক্ত ভিত না থাকায় এরকম হয়। অতি আধুনিক বাবা/মা/শিক্ষক যিনি বাবা/মা এবং তার চেয়ে বেশি। প্রধান সমস্যা মনের। শিশুদের মনের নাগাল অভিভাবকদের সময় দিয়ে বুঝতে হবে। তাদের উপর জোর খাটানো চলবে না। কষ্টসহিষ্ণু হওয়া দরকার। সন্তানদের মনকে পড়ে নিয়ে অভিভাবক, শিক্ষকগণ কাজ করবেন। অতিরিক্ত চাহিদাপূরণ নয়। প্রকৃতির মত শান্ত ও সময়নির্ভর ধৈর্য্যশীল হওয়ার বাস্তব/স্বাভাবিক বিষয়ে পরিচয় অভ্যস্ত করার চেষ্টা চালাতে হবে।

%d bloggers like this: