আমাদের সুবোধ কি সত্যি পালিয়ে যাচ্ছে?

সুবোধ তুই পালিয়ে যা

“সুবোধ তুই পালিয়ে যা” শিরোনামে নিচের প্রতীকী  দেয়াল চিত্রগুলো কিছুদিন বেশ আলোচনায় ছিলো। এখনো মাঝেমধ্যে অন লাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় এগুলো নিয়ে লেখালেখি হয়। রাজধানীর আগারগাঁ ও মহাখালিসহ কয়েকটি জায়গায় রাস্তার পাশের দেয়ালে এই গ্রাফিতিগুলো আঁকা ছিলো। আগারগাঁর সামরিক যাদুঘরের দেয়ালে আঁকা চিত্রগুলো মিরপুর থেকে বাসে আসা-যাওয়ার সময় আমার মতো অনেকেরই চোখে পড়তো। চিত্রগুলো রহস্যপূর্ণ। দেখে বোঝা যায় আনাড়ি হাতের নয়, বরং দক্ষ ও মেধাবী শিল্পীর কাজ। স্বদেশে দুর্বৃত্তের কাছে সহজ-সরল ও সুবুদ্ধিসম্পন্ন ভালো মানুষের পরাজয় এ চিত্রগুলোতে প্রতীকিভাবে বোঝানো হয়েছে, বুঝিয়ে ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। তবে প্রতিবাদের ভঙ্গিটা চমৎকার।…

Read More

নিউ ইয়র্কে একজন অনুপ কুমার দাস

নিউ ইয়র্কে একজন অনুপ কুমার দাস

ভাবতে খুব ভালো লাগে যে, এই শহরে অনুপ কুমার দাসের মতো একজন নৃত্যশিল্পী আছেন। শুধু নিউইয়র্কে কেন, পুরো বাংলাদেশে তাঁর মানের শিল্পী বিরল। যার নির্দেশনায় কুইন্স থিয়েটারের মতো প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নৃত্যনাট্য ‘মায়ার খেলা’। তাঁর এখানে আসার পথ কুসুমাত্তীর্ণ ছিল না। অনুপ কুমার দাস হলেন জীবনমঞ্চের সেই এ্যাথলেট, যিনি দক্ষ হার্ডলারের মতো শুধু জীবনের একের পর এক হার্ডলস পার হননি, রিলেরেসে খেলোয়াড়ের মতো গুরুর কাছ থেকে ধারণ করা বিদ্যা ছড়িয়ে দিয়ে চলেছেন প্রজন্মান্তরে। জীবনের ট্র্যাক এ্যান্ড ফিল্ডে এক অসামান্য এ্যাথলেট অনুপ কুমার দাস ।এই শহরে প্রায় সব বাঙালি…

Read More

ড. দীনেশচন্দ্র সেন ও তাঁর অপূর্ব কৃতিগাঁথা

ড. দীনেশচন্দ্র সেন ও তাঁর অপূর্ব কৃতিগাঁথা

(শেষাংশ) মৈমনসিংহ গীতিকা : মৈমনসিংহ গীতিকা পূর্ববঙ্গ গীতিকা প্রথম খণ্ড শ্রী দীনেশচন্দ্র সেন, রায়বাহাদুর, বি. এ, ডি-লিট্ কর্তৃক সংকলিত। এই গীতিকায় তিনি সহজেই বিশ্ব সাহিত্যের সুর বাজাতে সক্ষম হয়েছেন। ময়মনসিংহ থেকে বিভিন্ন প্রকার গাথা সংগ্রহের মাধ্যমে মানুষের জীবনের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না, আনন্দ-বেদনা, উৎসাহ-আগ্রহ, প্রেরণা থেকেই গাঁথা এই গীতিকা যা বাস্তব জীবনমুখী।  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ময়মনসিংহ গীতকা সম্পর্কে বলেছেন, “মৈমনসিংহ থেকে যে-সব গাথা সংগ্রহ করা হয়েছে তাতে সহজেই বেজে উঠছে বিশ্বসাহিত্যের সুর। কোনো শহুরে পাবলিকের দ্রুত ফরমাশের ছাঁচে ঢালা সাহিত্য তো সে নয়। মানুষের চিরকালের সুখ-দুঃখের প্রেরণায় লেখা সেই গাথা। যদি-বা ভিড়ের মধ্যে…

Read More

ড. দীনেশচন্দ্র সেন ও তাঁর অপূর্ব কৃতিগাঁথা

ড. দীনেশচন্দ্র সেন ও তাঁর অপূর্ব কৃতিগাঁথা

ড. দীনেশচন্দ্র সেন ১৮৬৬ সালের ৩ নভেম্বর  মানিকগঞ্জ জেলার বকজুরী গ্রামে নানার বাড়ি জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম ঈশ্বরচন্দ্র সেন। মাতার নাম রূপলতা দেবী। তাঁর বাবা ঈশ্বরচন্দ্র সেন মানিকগঞ্জ বারের ইংরেজি জানা প্রথম আইনজীবী ছিলেন। পরবর্তীকালে দীনেশচন্দ্র সেন তাঁর বাবা এবং মায়ের নামানুসারে কোলকাতার বেহালস্থ বাসভবনটির নামকরণ করেন রূপেশ্বর । ছোটবেলা থেকেই ড. দীনেশচন্দ্র সেন ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী এবং চিন্তা-চেতনায় ছিলেন ভিন্নধারার। পাঁচ বছর বয়সে তিনি সুয়াপুর গ্রামে বিশ্বম্ভর সাহার পাঠশালায় ভর্তি হন। ১৮৭৩ সালে তিনি মানিকগঞ্জ মাইনর স্কুলে পাঠ শুরু করেন। মাইনর পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কুমিল্লা গভর্নমেন্ট স্কুলে সপ্তম…

Read More

বন্ধু

বন্ধু

বন্ধু লাল গোলাপের শুভেচ্ছা নিও। একবার ঢাকা থেকে বাসে করে গোপালগঞ্জের বাড়িতে যাচ্ছি।  গাড়ির গানগুলো সাধারণত আমার পছন্দের তালিকার সাথে কখনই মেলে না। তাই মনোযোগ ও দেই না কোন গানে। তো সেইদিন  একটা গানটা বাজছিল।  আসিফ আকবর এর ”বন্ধু লাল গোলাপের শুভেচ্ছা নি/ ও আমি যে তোমার এই কথাটি মেনে নিও”। গানটা খুব  ভাল লাগল আর আমি ফিরে গেলাম বন্ধুদের সাথে। সেই ১৯৯৩ সালে আমি মাত্র ক্লাস এইটে পড়ি স্যারদের ভাষায় থার্ডক্লাস। এই থার্ডক্লাস এর ব্যাখা নিশ্চয় আনেকেই জানেন আর যদি না জানেন তো তাদেরকে বলি থার্ডক্লাস হচ্ছে তৃতীয়। সেটা…

Read More

আমি কি বহুবিশ্বের নাগরিক নই?

আমি কি বহুবিশ্বের নাগরিক নই?

মহাবিশ্ব কি অনেকের মাঝে একটি? পদার্থবিজ্ঞানের রথী-মহারথীরা এরকম কথা কখনো কখনো বলেন বলে, ঝেড়ে কাশেন না। আর তাই প্রশ্নটা ব্যাপক জ্বালাচ্ছে। আমি কি বহুমহাবিশ্বের নাগরিক নই? উত্তরটা হতে হবে, হয় ‘হ্যাঁ’ অথবা ‘না’। তার আগে, বুঝিয়ে বলি বহুমহাবিশ্ব বলতে আমি কি বুঝতে চাচ্ছি। আমাদের মহাবিশ্বটা যদি একটাই মহাবিশ্ব মাত্র না হয়, তবে কি এটি অনেকগুলো মহাবিশ্বের মাঝে একটি? অনেকগুলো মহাবিশ্ব বলতে কি বুঝতে চাই? অসীম সংখ্যার মহাবিশ্ব কি আসলেই বাস্তবতা, আর এর একটি বাস্তব হয়েছে আমাদের চেনা মহাবিশ্বতে? অসীম সংখ্যার মহাবিশ্বসমূহ যদি হয় বাস্তবতা, আর সেই বাস্তবের অংশ তো আমিও।…

Read More

আবিদ আজাদের কবিতা : শিল্পের বাগানবাড়ি

আবিদ আজাদ

পরিপূর্ণ অর্থেই বৃহত্তর বাংলা এক উর্বর ভূমি। ষড়ঋতুর পরিচর্যায় আর হাজারো নদ–নদীর দানে সমৃদ্ধ বাংলার মাটিতে জন্মে অসংখ্য রকমের গাছপালা–শস্যাদি। বাংলার সাংস্কৃতিক উঠোনে ধারাবাহিকভাবে জন্মলাভ ঘটে শত কবি–শিল্পী–কথাশিল্পী–নাট্যকারের। আবিদ আজাদ বাংলার উর্বর উঠোনে জন্ম নেয়া তেমনি এক শক্তিমান কবির নাম। তাঁর হাতে অন্যান্য ধরনের সৃষ্টিসহ রচিত হয়েছে বহু কবিতা। তাঁর কবিতা বৈচিত্র্যে ভরপুর, পাশাপাশি শিল্পগুণে সমৃদ্ধ। এক সহজাত কাব্যপ্রতিভা নিয়ে তিনি কবিতা লিখে গেছেন একের পর এক। ফলে তাঁকে কষ্টকল্পনার কষ্ট করতে হয়নি। একই কারণে তাঁর কবিতা গীতল, মোলায়েম, সুন্দর ও উপভোগ্য। তাঁর সৃষ্টির মাঝে অক্ষমের জোরাজুরি নেই, পাঠক–ঠকানো উপরচালাকি…

Read More